Kolome71

অবশেষে বাংলাদেশে খুজে পাওয়া গেল রশিদ খান ও আফ্রিদির কম্বিনেশন ক্রিকেটার

বাংলাদেশ হয়তো নতুন কোনো প্রতিভা পেল। বাংলাদেশের ক্রিকেটে সবচেয়ে বড় অভাবের জায়গা হলো লেগ স্পিন। অলেক কপালি থেকে জুবায়ের হোসেন লিখন, আমিনুল ইসলাম বিপ্লব সবাইকে দিয়ে ট্রাই করা হয়েছে। কিন্তু কেউ তেমন ভাবে নিজেদের জায়গা ধরে রাখতে পারেনি। আর এখন ট্রাই করা হচ্ছে রিশাদ হোসেনকে। তার যথেস্ট প্রতিভা আছে। বোলিংয়ের পাশাপাশি ব্যাটিংটাও করতে পারেন এই ক্রিকেটার।

এই প্রতিভা বাংলাদেশকে উপহার দিয়েছেন হাথুরে সিংহে। তার অনেক দিক খারাপ থাকতে পারে। কিন্তু তিনি আসার পর থেকে এক জন লেগ স্পিনার খুজে বেড়ান। তার নজরে পড়ে রিশাদ হোসেনকে। তিনিই একমাত্র সার্পোট করে রিশাদকে খেলান। যেখানে বাংলাদেশের ঘরোয়া আসরে লেগ স্পিনার খেলানো হয় না সেখানো হাথুরু ও বাংলাদেশের টিম ম্যানেজমেন্ট তার উপর ইনভেস্ট করে। এই জন্য হাথুরুকে ধন্যবাদ দেয়ায় যায়।

শুধু লেগ স্পিনার হিসেবে নয় তার ব্যাটও কথা বলে। বিশেষ করে তার ছক্কা মারার দক্ষতা সবাইকে অবাক করেছে। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে শেষ টি-টোয়েন্টি ম্যাচে দুর্দান্ত একটা ইনিংস খেলেন রিশাদ। শেষের দিকে ব্যাটিং ঝড়ে ৫৩ রান করেন তিনি। যদিও ম্যাচটা জিততে পারেনি বাংলাদেশ। তবে তার ব্যাটিং আলাদা করে সবার নজর কড়েছে।

আর শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে শেষ ওয়ানডে ম্যাচেতো রীতি ঝড় বয়ে দিয়েছেন রিশাদ হোসেন। ১৮ বলে ৪৮ রানের দুর্দান্ত ইনিংস খেলেন। এর মধ্যে ৪টি ছক্কা মারেন এই ব্যাটার। টি-টোয়েন্টিতে ইতিমধ্যে তার ব্যাট থেকে ৭টি ছক্কা এসেছে। তাই বোঝা যায় বাংলাদেশ একজন ভালো বিগ হিটার পেতে চলেছে। যদি তাকে ঠিক মত কাজে লাগানো যায় বা ভালো করে নার্সিং করা যায় তাহলে বাংলাদেশ ভালো কাউকে পেতে চলেছে।

ওয়ানডে ৩ ম্যাচে ২ ইনিংসে ৫৪ রান করেছেন। তার ব্যাটিং স্ট্রাইক রেট ২৪৫.৪৫। তার স্ট্রাইক দেখে বোঝা যাচ্ছে কতটা মারমুখি এই ব্যাটার। ওয়ানডে ফরমেটে ৪টি চার ও ৫টি ছক্কা হাকিয়েছেন এই ক্রিকেটার। সর্বোচ্চ রান ১৮ বলে ৪৮। এই ফরমেটে পেয়েছেন ১ উইকেট।

টি-টোয়েন্টি ফরমেটে ৯ ম্যাচে ৪ ইনিংসে ৭১ রান। সর্বোচ্চ ৫৩ রান। স্ট্রাইক রেট ১৩৬.৫৪। এই ফরমেটে ৮টি ছক্কা হাকিয়েছেন তিনি। উইকেট নিয়েছেন ৬টি।


Posted

in

by

Tags:

Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *