Kolome71

ব্যাটে বল লাগা-না লাগা নিয়ে সৌম্য যা বলছেন

নানা কারণে বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা দ্বৈরথ ভিন্ন মাত্রা পেয়েছে। নাগিন নৃত্য, ম্যাথিউসের টাইমড আউট বিতর্ক এই দ্বৈরথের উত্তেজনা আরও বাড়িয়ে দিয়েছে। সৌম্য সরকার গতকাল রিভিউ নিয়ে যেভাবে বেঁচে গেলেন তা বিতর্ক আরও উসকে দিয়েছে। বিষয়টি মেনে নিতেই পারছে না লঙ্কানরা।

বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা টি-টোয়েন্টি সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচের কথা। বাংলাদেশের ইনিংসের চতুর্থ ওভারে বল করতে এলেন বিনুরা ফার্নান্ডো। এই পেসারের ওভারের প্রথম বলটিই ছিল ব্যাক অফ দ্য লেন্থের। অতিরিক্ত লাফিয়ে ওঠা বলটিতে সজোরে পুল করেছিলেন সৌম্য সরকার। কিন্তু বল চলে যায় উইকেটকিপার কুশল মেন্ডিসের হাতে। তার আগে স্পষ্ট আওয়াজ শোনা যাওয়ায় কট বিহাইন্ডের আবেদন করে লঙ্কানরা। তাদের ডাকে সাড়া দেন আম্পায়ার গাজী সোহেলও।

আম্পায়ার আউট দিলে সঙ্গে সঙ্গে রিভিউ নেন সৌম্য সরকার। রিভিউয়ে আলট্রা এজে স্পষ্ট স্পাইক দেখা যাওয়ায় সাজঘরের পথে হাঁটা দিয়েছিলেন এই বাঁহাতি। কিন্তু টিভি আম্পায়ার মাসুদুর রহমান আলট্রা এজের সঙ্গে যখন ক্যামেরায় ধারণ করা টিভি ফুটেজ মিলিয়ে দেখেন, তখন স্পাইক ও ব্যাট-বলের অবস্থানের মধ্যে অসঙ্গতি দেখতে পান। একটি অ্যাঙ্গেল থেকে তিনি দেখেন যে, বল ব্যাট পেরিয়ে যাওয়ার বেশ পরে আলট্রা এজে স্পাইক দেখা দিচ্ছে। যা কখনোই সম্ভব নয়। ব্যাটে বল লাগার কারণে নয় বরং অন্য কারণে স্পাইক ধরা পড়েছে – এই সিদ্ধান্তে উপনীত হয়ে তিনি মাঠের আম্পায়ারের সিদ্ধান্ত বাতিল করে নটআউটের সিদ্ধান্ত দেন।

টিভি আম্পায়ার মাসুদুর রহমানের এই সিদ্ধান্ত মেনে নিতে পারেননি লঙ্কানরা। মাঠেই আম্পায়ারকে ঘিরে ধরে ব্যাখ্যা জানতে চান তারা। বিষয়টি নিয়ে ম্যাচের মধ্যেই বেশ কয়েকবার উত্তেজনাও ছড়ায়।

ম্যাচ শেষে এই ব্যাপারে মুখ খুলেছেন সৌম্য সরকার। জানিয়েছেন, ব্যাটে বল না লাগার ব্যাপারে  নিশ্চিত ছিলেন বলেই অপর পাশে থাকা ব্যাটার লিটন দাসের সঙ্গে পরামর্শ না করেই রিভিউয়ের আবেদন জানিয়েছিলেন। একটি গণমাধ্যমকে ম্যাচ শেষে তিনি বলেন, ‘না আমি আত্মবিশ্বাসী ছিলাম আমার ব্যাটে লাগে নাই। বুঝতে পেরেছিলাম। যখনই আম্পায়ার আউট দিয়েছে আমি সরাসরি রিভিউ নিয়েছি কারণ আমি আত্মবিশ্বাসী ছিলাম যে আমার (ব্যাটে) লাগে নাই। হয়তবা কোনো একটা আওয়াজ আসছিল। হয়ত চেইন বা হেলমেট থেকে। ব্যাটের সাথে গ্যাপ ছিল। আমি যখন চলে আসছিলাম বড় পর্দায় দেখেছিলাম তো বুঝতে পারি নাই। আমি আত্মবিশ্বাসী ছিলাম দেখে লিটনের (দাস) কাছে জিজ্ঞেস না করে রিভিউ নেওয়া।’

ম্যাচে খুব বেশি ছন্দে না থাকলেও লিটন দাসের সঙ্গে দুর্দান্ত পার্টনারশিপ গড়ে টাইগারদের জন্য জয়ের পথটা সহজ করে দিয়েছেন সৌম্য। খেলেছেন ২২ বলে ২৬ রানের ইনিংস। সুযোগ পেয়েও ম্যাচটা শেষ করে আসতে না পারার আক্ষেপ অবশ্য আছে তার,  ‘যদি শেষ করে আসতে পারতাম বা আরও কিছুটা এগিয়ে দিয়ে আসতে পারতাম আরও ভালো লাগত। শুরুটা ভালো হয়েছিল। একটা ভুল হয়েছিল পরে যেন আর এটা না করি সেই চেষ্টা থাকবে।’

প্রথম টি-টোয়েন্টিতে ৩ রানে হারা বাংলাদেশ দ্বিতীয় ম্যাচে পেয়েছে ৮ উইকেটের বড় জয়। সিরিজ জিততে আগামী শনিবার (৯ মার্চ) তৃতীয় ম্যাচে জয় দরকার টাইগারদের।


Posted

in

by

Tags:

Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *