Kolome71

যেসব লড়াইয়ে নির্ধারিত হতে পারে রংপুর-বরিশাল ম্যাচের ফল

অলিখিত সেমিফাইনাল! বিপিএলে রংপুর রাইডার্স বনাম ফরচুন বরিশালের কোয়ালিফায়ার রাউন্ডের ম্যাচটিকে এই নামে ডাকাই যায়। কুমিল্লার কাছে হেরে ফাইনালে ওঠার প্রথম সুযোগ নষ্ট করেছে রংপুর। অন্যদিকে এলিমিনেটর রাউন্ডে চট্টগ্রামকে হারিয়ে ফাইনালের আশা বাঁচিয়ে রেখেছে বরিশাল। তারকায় ঠাঁসা দুই দলেই আছেন একাধিক ম্যাচ উইনার। বড় ম্যাচে তাদের লড়াইগুলো হতে পারে এক্স ফ্যাক্টর।

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের বিপক্ষে প্রথম কোয়ালিফায়ারে যখন রংপুর রাইডার্স মুখোমুখি হয়, অনেকেই রংপুরের হার চেয়েছিলেন। কারণটা অনুমিতই। দেশের ক্রিকেট ইতিহাসের সেরা দুই তারকার দ্বৈরথ দেখার সুযোগ কে হাতছাড়া করতে চায়! বরিশালে চলছে তামিম ইকবালের রাজত্ব, রংপুরের অধিনায়ক কাগজে কলমে নুরুল হাসান সোহান হলেও অলিখিত নেতা তো সাকিব আল হাসানই।

আজ বুধবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) হাই ভোল্টেজ ম্যাচে মুখোমুখি বরিশাল-রংপুর। জিতলে ফাইনাল,হারলেই বিদায়। এমন সমীকরণ এমনিতেই ম্যাচের আকর্ষণ বাড়ায়। তার ওপর এই ম্যাচে তামিম-সাকিবের টুকরো লড়াই দেখার লোভ তো আছেই। লিগ পর্বে দুদলের শেষ দেখায় সাকিবের বলে তামিম আউট হওয়ায় ও রংপুরের ব্যাটিংয়ের সময় সাকিব আঊট হওয়ার পর তামিমের ব্যঙ্গাত্মক উদযাপন আকর্ষণ বাড়িয়ে দিয়েছে।

রংপুর-বরিশাল ম্যাচে যেসব বিষয় এক্স ফ্যাক্টর হতে পারে-

সাকিব-তামিম দ্বৈরথ: 

 

মাঠের লড়াইয়েও সাকিব-তামিম দ্বৈরথ অনেক গুরুত্বপূর্ণ। চলতি আসরের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক তামিম ইকবাল। বরিশালের পক্ষে তার চেয়ে বেশি রান নেই আর কারোরই। স্বাভাবিকভাবে ভালো শুরুর জন্য তার দিকেই তাকিয়ে থাকবে বরিশাল।

রান সংগ্রাহকের তালিকায় সাকিবের অবস্থান বেশ নিচেই। ব্যাটিংয়ে রংপুর মূলত একক কারও ওপর নির্ভরশীল নয়। সে কারণে ২৫৪ রান নিয়েই রংপুরের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক সাকিব। তবে একটা জায়গায় সাকিবের ধারেকাছেও কোনো দেশি খেলোয়াড় নেই। সাকিব এই রান করেছেন ১৬১.৭৮ স্ট্রাইক রেটে। চলমান বিপিএলে শুধু জিমি নিশাম ও এভিন লুইসই তার চেয়ে বেশি স্ট্রাইকরেটে রান করেছেন। অন্যদিকে রান পেলেও তামিমের স্ট্রাইকরেট বরিশালের জন্য উল্টো বিপদ হয়েও আসতে পারে। তামিম যে মাত্র ১২৫.৫০ স্ট্রাইকরেটে এই রান করেছেন।

সাকিব রংপুরের জন্য গুরুত্বপূর্ণ আরও একটি কারণে। বল হাতে দলের সবচেয়ে বড় ভরসা যে তিনিই। চলতি বিপিএলে ১২ ম্যাচে মাত্র ১৬.৭৬ গড়ে ১৭ উইকেট শিকার করেছেন সাকিব। শুধু শরিফুল ইসলামই তার চেয়ে বেশি উইকেট শিকার করেছেন।

তামিম-ফজলহক ফারুকি দ্বৈরথ: 

বরিশালের বিপক্ষে ম্যাচে রংপুরের তুরুপের তাস হতে পারেন আফগান পেসার ফজলহক ফারুকি। দ্রুত তামিমের উইকেট তুলে নিতে এই ডানহাতি পেসারের ওপর ভরসা করতে পারে বরিশাল। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে তামিমের হন্তারক হিসেবে ভালোই নামডাক আছে ফজলহকের। আফগানিস্তানের বিপক্ষে মোট ৯টি ওয়ানডে খেলেছেন বাংলাদেশ ওপেনার তামিম। বাংলাদেশের বিপক্ষে আফগানিস্তানের জার্সিতে ফজলহক যে চারটি ম্যাচ খেলেছেন, তার প্রতিটিতে তামিমকে ফিরিয়েছেন তিনি।  আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে এখন পর্যন্ত ফারুকির ৪৬টি বল খেলে তামিম রান করেছেন ২০।

এই সবই অবশ্য ওয়ানডে ক্রিকেটে। ফজলহকের বিপক্ষে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে ব্যাট করতে হয়নি তামিমের। ২৩ বছর বয়সী আফগানের টি-টোয়েন্টি অভিষেকের আগেই শেষ টি-টোয়েন্টি খেলে ফেলেছেন তামিম।

জিমি নিশাম বনাম বরিশালের ডেথ ওভারের বোলাররা:

চলতি বিপিএলে মাত্র ছয় ম্যাচ খেলেই রংপুরের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক হয়ে গেছেন নিশাম। প্রতিটি ম্যাচেই ব্যাট হাতে ঝড় তুলেছেন এই কিউই ব্যাটার। এবারের বিপিএলে কমপক্ষে ২০০ রান করা খেলোয়াড়দের কেউই নিশামের চেয়ে বেশি স্ট্রাইকরেটে রান করতে পারেননি। ৬ ইনিংসে ব্যাট  করে ৮৭.৬৭ গড় ও ১৭৩.০৩ স্ট্রাইকরেটে ২৬৩ রান করেছেন তিনি। অর্ধশতক করেছেন তিনটি। দেখা যাচ্ছে অবিশ্বাস্য স্ট্রাইকরেটের পাশাপাশি এই কিউই দারুণ ধারাবাহিকও। ফলে মুহাম্মদ সাইফউদ্দিন, কাইল মেয়ার্স বা জেমস ফুলাররা নিশামকে বেঁধে রাখতে পারছেন কি-না তার ওপর অনেকাংশেই নির্ভর করছে ফল।

রংপুরের বোলিং বৈচিত্রের বিপক্ষে কাইল মেয়ার্স: 

বরিশালের হয়ে ঝড় তোলার দায়িত্বটা কাইল মেয়ার্সের। নিশামের মতো ধারাবাহিক না হলেও বিপিএলে ভালোই খেলছেন মেয়ার্স। প্রায় ম্যাচেই ঝড়ো সূচনা এনে দিয়েছেন তিনি। আজও শুরুতে যদি ঝড় তুলতে পারেন তবে রংপুরের বিপদ বাড়তে পারে। তবে মেয়ার্সকে থামাতে সোহানের হাতে বোলিং অপশন আছে বেশ কয়েকটি।


Posted

in

by

Tags:

Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *