Kolome71

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সাত বছর শিশু ধর্ষনের ঘটনায় যুবক আটক

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সাত বছর বয়সী এক শিশু ধর্ষণের শিকার হয়েছে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত যুবক মোহাম্মদ রিফাতকে (২৭) আটক করেছে পুলিশ।

শুক্রবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে ভুক্তভোগী ওই শিশুকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় আটক যুবক মেড্ডা তিতাসপাড়া এলাকা বাসিন্দা। শুক্রবার বিকেল সাড়ে চারটার দিকে তাকে আটক করা হয়েছে।

জানা গেছে, ধর্ষণের শিকার ওই শিশু পরিবারের সঙ্গে জেলা শহরের একটি এলাকায় ভাড়া বাসায় থাকেন। শিশুর বাবা রিকশা চালক এবং মা অন্যের বাসায় গৃহপরিচারিকার কাজ করেন।

ভুক্তভোগী শিশুর স্বজন, হাসপাতাল ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার বিকেলে শিশুকে এলাকার গণশিক্ষা কার্যক্রমে পাঠান তার মা। পড়ালেখা শেষ করে সন্ধ্যায় বাড়ি ফিরে আসে ওই শিশু। এ সময় তার মা গৃহপরিচারিকার কাজ করতে অন্য বাড়িতে যান। বাবা দুপুর থেকে রিকশা নিয়ে শহরে ছিলেন। এই ফাঁকে বাড়িতে একা পেয়ে চকলেট দেখিয়ে রিফাত নামের ওই যুবক শিশুটিকে কোলে করে বাইরে ডেকে নিয়ে যান। কৌশলে নিজ বাড়িতে নিয়ে মুখ চেপে ধরেতাকে ধর্ষণ করে। পরে বাড়িতে এসে শিশুটি পেটব্যথা বলে কান্না শুরু করে। শিশুটির মা কারণ জানতে চাইলে সে কিছুই বলেনি। একপর্যায়ে মা রেগে গিয়ে শিশুকে মারধোর করেন। ব্যথা বন্ধের জন্যে রাতে শিশুকে গ্যাস্ট্রিকের বড়ি খাওয়ান তার মা। পরে শুক্রবার সকালে শিশুটির গোপন স্থানে রক্তক্ষরণ শুরু হয়। এ ঘটনার পর শিশুটির মা জানতে চাইলে মায়ের কাছে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার ঘটে যাওয়া সব খুলে বলে শিশুটি।

রক্তক্ষরণ বন্ধ না হওয়ায় শুক্রবার দুপুরে ওই শিশুকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যান পরিবারের সদস্যরা। পরে খবর পেয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর থানা পুলিশ হাসপাতালে গিয়ে শিশু ও শিশুর পরিবারের লোকজনের বক্তব্য শুনেন। এবং মেড্ডা তিতাসপাড়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে রিফাতকে আটক করেন।

ওই শিশুর বাবা বলেন, ‘এই ঘটনার দৃষ্টান্তমূলক বিচার চাই। এই নরপশুর ফাঁসি চাই।’

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আসলাম হোসেন জানান, ধর্ষণের শিকার শিশুটির বাবা বাদী হয়ে শুক্রবার রাতে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। এই মামলায় আটক রিফাতকে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে।


Posted

in

by

Tags:

Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *