যে সমীকরণ মিললে সুপার এইটে যাবে পাকিস্তান-নিউজিল্যান্ড-ইংল্যান্ড


টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ২০২৪ আসরের গ্রুপপর্বের ২৪টি ম্যাচ খেলা হয়ে গেছে। এর মধ্যে সুপার এইট নিশ্চিত করে ফেলেছে দক্ষিণ আফ্রিকা ও অস্ট্রেলিয়া। অপরদিকে বেকায়দায় পড়ে গেছে ক্রিকেটপাড়ার বড় নাম পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কা, নিউজিল্যান্ড ও ইংল্যান্ড।

বেকায়দায় থাকলেও এখনো সুপার এইটে ওঠার দৌড়ে ঠিকে আছে পাকিস্তান, নিউজিল্যান্ড ও ইংল্যান্ড। তবে শ্রীলঙ্কার আশার প্রদীপ নিভে গেছে বললেই চলে।

এই প্রতিবেদনে আমরা দেখবো, গ্রুপপর্বের বাকি ম্যাচগুলো শেষে যে সমীকরণ মিলে গেলে সুপার এইটে খেলতে পারবে পাকিস্তান, নিউজিল্যান্ড, ইংল্যান্ড ও শ্রীলঙ্কা।

পাকিস্তানতিন ম্যাচে জয় ১টিতে। যুক্তরাষ্ট্র ও ভারতের কাছে হার। তৃতীয় ম্যাচে কানাডার বিপক্ষে ৭ উইকেটের জয়ে রানরেট ০.১৯১। সুপার এইটে যেতে হলে পাকিস্তানকে তাদের বাকি এক ম্যাচে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে জিততেই হবে। তার আগে প্রার্থনায়ও বসতে হবে বাবর আজমের দলকে। আজ বুধবারের ম্যাচে যুক্তরাষ্ট্র যেন ভারতের কাছে, পরের ম্যাচ আয়ারল্যান্ডের কাছেও হেরে যায়, সেটিই থাকবে পাকিস্তানিদের একমাত্র প্রার্থনা।

ইংল্যান্ডদুই ম্যাচে এক হার আর পরিত্যক্ত ম্যাচের এক পয়েন্ট নিয়ে বি-গ্রুপের পয়েন্ট টেবিলে তিনে আছে ইংল্যান্ড। সুপার এইটে খেলতে হলে বাকি দুই (ওমান ও নামিবিয়া) ম্যাচে তাদের জিততেই হবে। অপরদিকে প্রার্থনা করতে হবে স্কটল্যান্ড যেন অস্ট্রেলিয়ার কাছে হেরে যায়।

যদি অসিদের বিপক্ষে ১৬১ রান তাড়ায় ২০ রানে হারে স্কটল্যান্ড, তাহলে ইংল্যান্ডকে বাকি দুই ম্যাচ মিলিয়ে কমপক্ষে ৯৪ রানের ব্যবধানে জিততে হবে। কারণ স্কটল্যান্ডের রানরেট অনেক বেশি, ২.১৬৪। আর ইংল্যান্ডের রানরেট -১.৮।

নিউজিল্যান্ডসুপার এইটে যাওয়ার পথে নিউজিল্যান্ডকে খেলতে হবে অঘোষিত নকআউট ম্যাচ। আগামীকাল বৃহস্পতিবার ভোর সাড়ে ৬টায় (বাংলাদেশ সময়) ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারাতেই হবে কিউইদের। যদি এই ম্যাচে ক্যারিবিয়ানরা জিতে যায়, তাহলে কোনো সমীকরণের দিকে না তাকিয়ে ফাইনালে চলে যাবে তারা। দ্বিতীয় দল হিসেবে তাদের সঙ্গে যাবে আফগানিস্তান। বাদ পড়বে নিউজিল্যান্ড।

আর যদি নিউজিল্যান্ড জিততে পারে, তাহলে পরের দুই ম্যাচের দিকে মনোযোগ দিতে হবে তাদের। এই দুই ম্যাচে কমপক্ষে ১২০ রানের ব্যবধানে জিততে হবে কিউইদের। তবে সুপার এইটে খেলতে পারবে কেন উইলিয়ামসনের দল।

শ্রীলঙ্কাপ্রথম দুই ম্যাচে হার। তৃতীয় ম্যাচ ভেসে গেলো বৃষ্টিতে। তাতে একেবারে খাদের কিনারায় চলে গেছে শ্রীলঙ্কা। তবে কাগজে-কলমে এখনো সুপার এইটে ওঠার আশা আছে তাদের। তবে সেই সমীকরণ প্রায় অসম্ভবই বলা যায়।

প্রথমত, প্রার্থনায় বসতে হবে লঙ্কানদের। বাংলাদেশ-নেদারল্যান্ডসের মধ্যকার ম্যাচটি যেন বৃষ্টিতে ভেসে যায় সেজন্য একাগ্রচিত্তে প্রার্থনা করবে তারা। তারপর নিজেদের শেষ ম্যাচে নেদারল্যান্ডসকে হারাতেই হবে লঙ্কানদের।

তারপর আর প্রার্থনা করা ছাড়া লঙ্কানদের কোনো কাজ নেই। আগামী ১৪ জুন নেপালকে যেন বড় ব্যবধানে হারাতে পারে দক্ষিণ আফ্রিকা, সেজন্য প্রার্থনায় বসবে তারা। একই দিনে বাংলাদেশ ও নেপালের মধ্যকার ম্যাচে সামান্য ব্যবধানে যেন নেপাল জয় পায়, সে আশায় থাকবে হবে ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গার দলকে।

অপরদিকে বাংলাদেশ যদি আগামীকাল রাতে সাড়ে আটটার ম্যাচে সেন্ট ভিনসেন্টের অ্যারনোস ভ্যালে স্টেডিয়ামে নেদারল্যান্ডসকে হারাতে পারে, তাহলে সুপার এইট নিশ্চিত করে ফেলবে। সেই ম্যাচে না পারলে পরের ম্যাচে নেপালকে হারাতে পারলেও সেরা আট নিশ্চিত হবে বাংলাদেশের।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *